1. pragrasree.sraman@gmail.com : ভিকখু প্রজ্ঞাশ্রী : ভিকখু প্রজ্ঞাশ্রী
  2. avijitcse12@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক :
শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০১:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ধম্মকথা’ বৌদ্ধ অনলাইন মুখপত্র এর উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ রাউজানে বিদর্শনসাধক লোকানন্দ ভিক্ষুর থের বরণ অনুষ্ঠান ভদন্ত বুদ্ধপ্রিয় মহাথের সকাশে বৃহত্তর হোয়ারপাড়া বৌদ্ধ কল্যাণ সমিতি নেতৃবৃন্দ উত্তবঙ্গের আদিবাসীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ভদন্ত জ্যোতিমিত্র স্থবিরের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন ঢাকায় বৌদ্ধদের জন্য সার্বজনীন শ্মশান নির্মাণের সিদ্ধান্ত হাটহাজারীর জোবরা গ্রামে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় পরলোকে ভদন্ত জ্যোতিমিত্র স্থবির উখিয়ার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “অগ্রযাত্রা কল্যাণ পরিষদ”র কমিটি গঠন মারমা ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন এর রাঙ্গামাটি জেলা  শাখা গঠন

অপহরণ-ধর্মান্তর-মৃত্যু: ২৬ দিন পর মরদেহ পেলেন বাবা-মা

প্রতিবেদক
  • সময় সোমবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৪২ পঠিত

আজ সোমবার বিকাল সোয়া ৩টায়  মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত তদন্ত কর্মকর্তা র‍্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এর উপপরিদর্শক অর্জুন চৌধুরীর উপস্থিতিতে লাকিংমের চাচাতো ভাই ক্যচিং চাকমা সই করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গের হিমঘর থেকে লাকিংমে চাকমার মরদেহ গ্রহণ করেন।

লাকিংমের বাবা লালা অং চাকমা বলেন- ‘অভাবের সংসার, এত টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নেই আমার। তাই মেয়ের লাশ নিতে পারছিলাম না। অবশেষে র‌্যাব এই টাকা দিতে রাজি হয়েছে।

লালা অং চাকমা বলেন, তাদের মেয়ে লাকিংমেকে অপহরণের পর জোর করে বিয়ে এবং পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তারা প্রিয় সন্তানের (লাকিংমে) মরদেহ গ্রামে নিয়ে শেষকৃত্য করতে চান।

র‌্যাব-১৫ এর অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহম্মেদ বলেন, ভিকটিমের বাবা খুবই দরিদ্র। মর্গের বিল ২৫ হাজার টাকার জন্য মেয়ের লাশ নিতে পারছিলেন না লালা অং চাকমা। খবর পেয়ে আমরা মর্গের বিল পরিশোধ করেছি। লাকিংমে চাকমার লাশ নিতে আর কোনো বাধা রইলো না।

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার সমুদ্র উপকূলীয় ইউনিয়ন বাহারছড়ার দক্ষিণ শিলখালী এলাকার চাকমা পল্লিতে বসতি লালা অং চাকমার। জীবিকা নির্বাহ করেন সমুদ্রে মাছ ধরে ও পাহাড়ে জুম চাষ করে। তার পাঁচ সন্তানের  মধ্যে দ্বিতীয় মেয়ে লাকিংমে চাকমা।

বাবা লালা অং চাকমার দাবি, ২০২০ সালের ৫ জানুয়ারি তার মেয়ে লাকিংমেকে স্থানীয় যুবক আতাউল্লাহর নেতৃত্বে কয়েকজন অপহরণ করে। এরপর জোরপূর্বক বিয়ে করে হত্যা করা হয়। এখন মেয়ে হত্যার বিচার চান তিনি।

হাসপাতালের লাশঘরের সামনে লাকিংমে চাকমার মা কেচিং চাকমা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘মেয়ের লাশটা পেয়েছি। আমরা নিতান্তই অসহায় দরিদ্র মানুষ। এখন আমাদের চাওয়া-একটাই যাতে আমার মেয়ের অপহরণকারি ও হত্যাকারীদের বিচার হয়।’

আজ বিকেল সাড়ে ৫টায় কক্সবাজার জেলার রামুর উপজেলার জাদিমুড়া কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ মহাশ্মশানে লাকিংমে চাকমাকে সমাহিত করা হয়। এসময় র‍্যাবের একটি দল সেখানে উপস্থিত ছিল।

কক্সবাজারের একটি আদালত নিহত কিশোরীর ধর্মান্তরকরণ এবং অপহরণের ঘটনা তদন্ত করতে দায়িত্ব দেন র‌্যাবকে। আদালতের নির্দেশে র‌্যাব-১৫ রোববার আদালতে প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। র‌্যাবের প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আদালত রোববার লাকিংমের মরদেহ শেষ পর্যন্ত বাবার জিম্মায় দেওয়ার নির্দেশ দেন।

শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো
© All rights reserved © 2019 bibartanonline.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarbibart251